Slide 1

Slide 1

Slide 2

Slide 2

Slide 3

Slide 3

Slide 4

Slide 4

Slide 5

Slide 5

Bible changed & Koran is Holy || বাইবেল পরিবর্তিত এবং কোরআন আসমানি ক

 বাইবেল পরিবর্তিত

এবং

কোরআন আসমানি কিতাব

 

 

বাইবেল পরিবর্তিত !
 
যে কোন বিষয় বুঝতে হলে আমাদের প্রথমে যে বিষয়টি জানতে হচ্ছে তা হচ্ছে - ৬টি প্রশ্নের উত্তর জানা। এটা পরিবর্তন করেছিল কে? তা কখন করেছিল? কেন করেছিল? কি করেছিল? মূল গ্রন্থটি কোথায়? কেমন করেই বা এই কঠিন কাজটি সম্পাদিত হল?
 
 
 
১. কে ?
 
২ নং সুরা বাকারা ১১৩ - ইহুদীরা বলে, খ্রীষ্টানদের কোন ভিত্তি নাই এবং খ্রীষ্টানরা বলে, ইহুদীদের কোন ভিত্তি নাই; অথচ তারা কিতাব (ঐশীগ্রন্থ) পাঠ করে।
 
 
কোরআন অনুসারে তারা পরস্পরকে দোষারোপ করছে, অথচ কিতাব পরিবর্তন করার দোষ কেউ কাউকে দেখাচ্ছে না। যীশু নিজে ইহুদীদের কপটতার বিরুদ্ধে সরাসরি কথা বলেছেন (মথি ২৩ অধ্যায়) কিন্তু তিনি তাদেরকে ধর্মীয় গ্রন্থ পরিবর্তন করার দোষে অভিযুক্ত করেন নি।
 
 
তাহলে কি যীশুর শিষ্যগণ এই পরিবর্তন করেছেন? ৫নং সুরা মায়িদা ৮২ - ... এবং যারা বলে ‘আমরা খ্রীষ্টান’ মানুষের মধ্যে তা’দিগকেই তুমি মু’মিনদের নিকটতর বন্ধুত্বে দেখিবে, কারণ তাদের মধ্যে অনেক পন্ডিত ও সংসার-বিরাগী আছে, আর তারা অহংকারও করে না।
 
 
যে সমাজকে ইসলাম ধর্মগ্রন্থ এত শ্রদ্ধার দৃষ্টিতে দেখে আসছে ও এত প্রশংসা করে আসছে, সেই সমাজ কি এতই অসৎ ও অসাধু যে, সব জেনে শুনেও তারা তাদের ধর্মগ্রন্থ পরিবর্তন বা বিকৃত করবে? তাছাড়া যেখানে প্রকাশিত বাক্য ২২ : ১৮-১৯ এ রয়েছে তাদের জন্য কঠোর সাবধান বাণী।
 
                                               
২. কখন ?
 
এখন বড় প্রশ্ন হলো এই পরিবর্তন কখন করা হয়েছে? এর উত্তর খুবই সহজ। হয়ত বলতে হবে ইসলাম ধর্মের পরে অথবা তার আগে এর বাইরে তৃতীয় কোন উত্তর নেই।
যদি আমরা মনে করি যে, এটি ইসলামের পূর্বে পরিবর্তন করা হয়েছে, তাহলে কি কোরআন এই গ্রন্থ সম্পর্কে কি এই কথা বলতো -
৪২ নং সুরা শূরা ১৫ - ...এবং বল, আল্লাহ্‌ যে কিতাব অবতীর্ণ করেছেন আমি তাতে বিশ্বাস করি।
 
 
–৫নং সুরা মায়িদা ৪৪ ও ৪৬ - সঠিক পথের বিবরণ ও আলো মওজুদ রয়েছে।
 
 ৩ নং সুরা ইমরান ১১৯ - তোমরা সমস্ত কিতাবে ঈমান রাখ...। শুধু না নয় তিনি এই বাইবেল এত ভালবাসতেন ও শ্রদ্ধা করতেন যে, তিনি তাঁর উম্মতগণকে এই কথা বলেছিলেন - ৫নং সুরা মায়িদা ৬৮ - ....অন্যদিকে ১০নং সুরা ইউনুস ৯৪ আয়াতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে - ........
 
 
 
–           সুতরাং এটা নিঃসন্দেহে প্রমাণিত যে, ইসলামের পূর্বে বাইবেল সঠিক ছিল
 
 
–           যদি ইসলামের পরে এবং এমনকি বর্তমানেও বহু ভাষায় যদিও বাইবেল অনুবাদ করা হয়েছে এবং হচ্ছে কিন্তু তৎকালীন কিতাবের মূল ভাষায় লেখা অনেক পান্ডুলিপি আজ পর্যন্ত পৃথিবীর বিখ্যাত যাদুঘরগুলিতে পাওয়া যায়। আর অনুবাদ সেই পান্ডুলিপি থেকেই করা হচ্ছে। সুতরাং বর্তমানেও বাইবেল অপরিবর্তিত, কেননা সর্বশক্তিমান দৃঢ়ভাবে প্রকাশ করেছেন যে, সেই বীজ জীবন্ত ও চিরস্থায়ী বাক্য। কিতাবে লেখা আছে, ১পিতর ১ : ২৪ - .....
 
 
৩   কেন ?
 
কোন্ স্বার্থে খ্রীষ্টিয়ানেরা এটা পরিবর্তন করতে ইচ্ছে হলো? তারা কেন পরিবর্তন করতে চাইল, যার জন্য তাদেরকে দোষী করা হয়েছে?
 
 
যদি আগে করে থাকে তাহলে, তাহলে নবী সে সময় নির্দিষ্টভাবে দেখিয়ে দিতে পারতেন এবং বর্তমানেও ইসলামিক পন্ডিতগণ তা দেখিয়ে দিতে পারতেন। কিন্তু এমনটি হচ্ছে না। আর বর্তমানে যদি পরিবর্তন করার ইচ্ছে হতো তাহলে এখন যে দু’একটি পদ তারা ব্যবহার করছে তাও তো তারা মুছে দিতে পারতো যার জন্য এখনও অপবাদ শুনতে হচ্ছে।
 
 
৬নং সুরা আনআম ৮৯-৯০ - আগের কিতাব মুসলমানদেরকে বিশ্বাস করতে বলা হয়েছে এবং নবীকে অনুসরণ করতে বলা হয়েছে তা কেন খ্রীষ্টিয়ানেরা পরিবর্তন করতে যাবে? তার কি প্রয়োজন আছে?
 
 ৪   কোথায় ?
 
যদি আমরা তাদের দাবী মেনেই নিই যে, বাইবেল পরিবর্তিত হয়েছে, তাহলে যে বিষয়টি সামনে আসবে তাহলো- কোন কোন জায়গায় তা করা হয়েছে এবং কারা এতে জড়িত ছিল। তার থেকেও গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হলো আসলটি বা অপরিবর্তিতটি তাদের কাছে আছে কি না। আমাদের অধিকার আছে বলা যে, আসলটির সাথে মিলিয়ে পরিবর্তনটি যেন আমাদের তারা দেখিয়ে দেন। বাস্তব সত্য হলো সেরকম কোন তথ্য প্রমাণ তাদের কাছে নেই। তাই এই দাবীটি হলো অযৌক্তিক ও হাওয়া-ই হাদিস।
 
 ৫.   কি ?
 
যদি পরিবর্তন হয়ে থাকে তাহলে কি পরিবর্তন করেছে? এ প্রশ্নের উত্তরে তারা যা বলে তাহলো- যোহন ১৪: ১৫-১৭। এখানে একজন সাহায্যকারী বা সহায় পাঠিয়ে দেয়ার প্রতিজ্ঞা করা হয়েছে। তা চিরকাল থাকবে এবং তা হলো সত্যের রূহ। যা প্রেরিত ১: ৮ আয়াতে ফেরেস্তাগণ পুনঃ ব্যক্ত করেছেন এবং প্রেরিত ২ : ১-৪ পদে এর পূর্ণতা আমরা দেখতে পাই।
 
 
তাছাড়া হযরত মোহাম্মদ এর জীবদ্দশায় এরকম কোন দাবী করেন নি যে, তিনিই সেই সহায় বা সাহায্যকারী হিসেবে ৫৮০ বছর পর তিনি এসেছেন।
 
৬ .   কেমন করে ?
 
প্রথম মন্ডলী থেকে আরম্ভ করে প্রায় সব মন্ডলীতে গ্রীক ও হিব্রু ভাষায় বাইবেল ব্যবহৃত হতো। তাছাড়া প্রায় ১৪০০শত ভাষারও বেশী ভাষায় এটি অনুবাদ করে বিতরণ করা হয়েছে। এটি পৃথিবীতে সবচেয়ে অধিক বিক্রিত বই বলে প্রমাণিত।
 
 
যদি কেউ এটি থেকে কোন কিছু পরিবর্তন করতে চায় তাহলে পৃথিবীর সমস্ত জায়গায় বিক্ষিপ্ত গ্রীক ও হিব্রু ভাষায় সব বাইবেল সংগ্রহ করতে হতো। এ জন্যে তাদের ইউরোপ, এশিয়া ও আফ্রিকার অনেক জায়গায় ঘুরে ঘুরে প্রত্যেক লাইব্রেরী, পাঠাগার, মন্ডলী এবং সমস্ত ইহুদী ও খ্রীষ্টিয়ানদের ঘরে ঘরে গিয়ে প্রথমে আসল কপি সংগ্রহ করে পরিবর্তন করতে হতো।
 
 
যেমন- বৃটিশ, প্যালেষ্টাইন ও জার্মানী - ইত্যাদি যাদুঘরে বর্তমানে প্রায় ৫০০০হাজারেরও বেশী পান্ডুলিপি রয়েছে। এর মধ্যে কয়েকটি পান্ডুলিপি পাওয়া গেছে কোরআন নাযিল হবারও ৮০০শত বছর পূর্বে।
 
 
 
অভিযোগকারীদের মধ্যে এমন কেউ নেই যে কোরআনের এই উদ্ধৃত অংশটি অস্বীকার করবে - ৬নং সুরা আনআম ১১৫-১১৬ - কেউ পরিবর্তন করতে পারে না তাঁর কথা; তিনি সব শুনেন, সব জানেন। যারা তা করে শুধু অনুমান নির্ভর।
১০নং সুরা ইউনুস ৬৪ - কোন পরিবর্তন নাই তাঁর বাণীতে। ১৭নং সুরা কাহ্ফ ২৭
 
 
 
তাহলে কেমন করে ঈশ্বর তাঁর কথা পরিবর্তন করতে দিলেন এই জগতের মানুষকে?
 
–           তবে আমরা বলতে পারি যে, ইহুদী বা খ্রীষ্টিয়ানেরা কিতাব সঠিকভাবে মেনে চলতো না। সেই বিষয়ে কোরআনে বলা হয়েছে, ৬২নং সুরা জুমু’আ ৫ –
 
–           তাই সমস্ত কিতাবের উপর ঈমান আনতে বলা হয়েছে, তা না হলে তারা পথভ্রষ্ট - ৪নং সুরা নিসা ১৩৬ এবং কলেমায়ে মোজাম্মেল (৫ কলেমার একটি)
 
–           ১৬ নং সুরা নাহ্ল ৪৩ - আগেকার কিতাবীদের কাছে জানতে যেতে বলা হয়েছে (ফুট নোট)।
 
–           আগের কিতাবের সমর্থক ও সংরক্ষক (প্রহরী) হলো নবী ৫ নং সুরা ৪৮ আয়াত।
 
–           ২নং সুরা বাকারা ১-৫ পরিবর্তিত কিতাব কি খোদা মুসলমানদেরকে বিশ্বাস ও অনুসরণ করতে বলতো?
 
 
 
 
আগের কিতাব বাতিল :
 
 
জগতের আইন-কানুন আর ঈশ্বরের আইন-কানুন কি একই? জগতের আইন-কানুনও শাসকের পরিবর্তনের সাথে সাথে পরিবর্তন হয় না। অনেক সময় কিছু বাতিল বা কিছু সংযোজন করা হয়। কিন্তু দেখবেন মূল আইন কখনও বাতিল হয় না। তাই জগতের কিছু স্বার্থন্বেষী লোক জগতের নিয়মের সাথে ঈশ্বরের নিয়ম এক করে তুলনা করতে চায়। এটি কি মেনে নেয়া যায়?
 
 
জগতের জায়গা কেনা-বেচা নিয়ে তুলনা -
 
নবীগনের সাথে জগতের শাসকদের তুলনা করা যায় না।
 

যীশু বলেছেন, মথি ৫ : ১৭, ১৮ - বাতিল করতে নয় বরং পূর্ণতা দান করতে এসেছেন। ২ তীমথিয় ৩ : ১৬ - এখানে কোন পার্থক্য করা হয় নি। খোদার কালামকে সমান মর্যাদা দান করা হয়েছে।

 

 

next page

 
  ©Isa-e Church Bangladesh